মেনু নির্বাচন করুন
উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র

প্রতিটি উপজেলায় একটি করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স রয়েছে। এই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের এর আওতাধীন ও জেলার সিভিল সার্জনের অধীন পরিচালিত।

দপ্তরপ্রধানেরপদবী:  উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা

কার্যক্রম:

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অধিনে শিশুসহ সকল জনগোষ্ঠীর মৃত্যুর হার ও রোগে ভোগার হার কমানো, গর্ভাবস্থা এবং প্রসব জনিত কারণেমাতৃ স্বাস্থ্য-এর ক্ষতি রোধের লক্ষে যেসকলকাজগুলো/ কর্মসূচীগুলোবাস্তবায়িতহয়সেগুলোরমুখ্যউদ্দেশ্যহল

() রোগ নিরাময় বা চিকিৎসা সেবা

() রোগ নিয়ন্ত্রণ বা রোগ প্রতিরোধ

() নিরাপদ গর্ভাবস্থা এবং নিরাপদ প্রসব নিশ্চিত করে মাতৃ স্বাস্থ্য রক্ষা

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

০১.

বর্হিঃ বিভাগীয় সেবা:

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি গুরুত্বপূর্ণ সেবা। এখানে মেডিকেল অফিসার ও জুনিয়র কনসালটেন্টগণ বসেন এবং সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ৩/- টাকা ফি বিনিময়ে সেবাদান করে থাকেন। বহিঃ বিভাগটি ৫০ শয্যা হাসপাতালের সম্প্রসারিত নতুন ভবনের নীচ তলায় অবস্থিত। এখান থেকে (ফার্মেসী) সরবরাহ থাকা সাপেক্ষে বিনামূল্যে ঔষধ দেওয়া হয় এবং এখানে একটি টিকেট কাউন্টার আছে। বহিঃ বিভাগ থেকে আরো যে সকল সেবা পাওয়া যায় তা হলো - ইপিআই টিকাদান, মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবা এবং গর্ভবর্তী মহিলাদের সেবাদান, রোগ নিরূপনের জন্য ল্যাবরেটরীতে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ফি বিনিময়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। চিকিৎসকের পরামর্শ মতে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ফি বিনিময়ে এক্স-রে, ইসিজি করা হয়ে থাকে।

০২.

আন্তঃ বিভাগীয় সেবা :

রোগীরা জরুরী বিভাগ থেকে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ৫/- টাকা ফি বিনিময়ে সেবাদান করে থাকেন। মেডিকেল অফিসার পরামর্শ মতে রেজিষ্ট্রেশন করে আন্তঃ বিভাগে ভর্তি করে দেওয়া হয়। ভর্তি হওয়ার সাথে সাথে আবাসিক মেডিকেল অফিসার দিনে ২ বার চিকিৎসা সেবা প্রদান করে থাকে ।

০৩.

জরুরী বিভাগ সার্বক্ষনিক চিকিৎসা সেবা :

দিবা রাত্রি ২৪ ঘন্টা জরুরী বিভাগ খোলা থাকে এবং আগত রোগীদের জরুরী চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। বিভিন্ন এলাকা থেকে রেফার্ডকৃত রোগীদের গুরুত্ব সহকারে স্বাস্থ্য সেবা দেওয়া হয় এবং প্রয়োজন বোধে কোন কোন রোগীকে জেলা হাসপাতালে রেফার করা হয়।

০৪.

ইপিআই :

শিশু/মহিলাদের টিকাদান কার্যক্রম- ইপিআই কার্যক্রমের আওতায় প্রতিদিন মা শিশুদের প্রতিষেধক টিকা দেওয়া হয়। এর আওতায় ৯টি রোগ প্রতিরোধ করা হয়। মা ও শিশুর মৃত্যুর হ্রাসে ইহা একটি গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচী।

০৫.

যক্ষা ও কুষ্ঠ রোগের চিকিৎসা সেবা:

হাসপাতালে আগত রোগীগণ মেডিকেল অফিসার (ডিসি) বা চিকিৎসকের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা যেমন- কফ, এক্স-রে, রক্ত ইত্যাদি সম্পন্ন করে রোগী হিসেবে সনাক্ত হওয়ার পর ডর্টস কর্ণার থেকে রেজিষ্ট্রেশন নম্বর নিয়ে পরিচয় পত্র দেওয়া হয়। ৬-৮ মাস মেয়াদী চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় সম্পূর্ণ ঔষধ বিনামূল্যে সরবরাহ করা হয়। ডর্টস কর্ণার বা সেবিকার উপস্থিতিতে রোগীকেঔষধ সেবন করতে হয়। কুষ্ঠ রোগীকে চিকিৎসক কর্তৃক সনাক্তকৃত রোগীকে ডর্টস কর্ণার থেকে রেজিষ্ট্রেশন নম্বর নিয়ে চিকিৎসা শুরু করবেন । ৯-১৮ মাস মেয়াদী এর চিকিৎসায় সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ঔষধ সরবরাহ করা হয়।

০৬.

ওআরটি কর্ণার :

ডায়রিয়া রোগীর সাময়িক ব্যবস্থাপনা-বহি বিভাগে আগত ডায়রিয়া রোগীদেরকে তৈরী  স্যালাইন খাওয়ানো হয়, তাহাদেরকে ডায়রিয়া প্র্রতিরোধ সর্ম্পকে সুষ্পষ্ট ধারনা দেওয়া শিক্ষাসহ খাওয়ার স্যালাইন কিভাবে তৈরী করতে হয় সেই ব্যাপারে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

০৭.

(ক)নিরাপদ প্রসব এবং প্রসব পূর্ব  প্রসবোত্তর ব্যবস্থাপনা :

নিরাপদ প্রসব হচ্ছে এমন একটি পরিবেশ/অবস্থা যা একজন নারী গর্ভ প্রসব সংক্রান্ত জটিলতা ও মৃত্যু থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সকল সেবা পেতে পারেন তা নিশ্চিত হতে হবে। যেমন গর্ভকালীন সেবা, নিরাপদ প্রসব ব্যবস্থা, জরুরী প্রসব ব্যবস্থা ইত্যাদি। প্রসব পূর্ব সেবার জন্য গর্ভবতী  মাকে অবশ্যই কোন স্বাস্থ্য কর্মী ,অথবা চিকিৎসকের নিকট শরনাপন্ন হতে হবে, প্রসব,রক্ত পরীক্ষা করে, সেই অনুযায়ী ঔষধের ব্যবস্থা করতে হবে। জন্ডিস থাকলে প্রচুর পানি খেতে হবে ও বিশ্রাম নিতে হবে। এই সময় গর্ভবর্তী মায়ের আত্মীয়-স্বজনকে প্রসব সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ের উপর সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। যেমন প্রসব কোথায় হবে,টাকা-পয়সার প্রয়োজনীয়তা, জরুরী ভিত্তিতে গাড়ীর ব্যবস্থা করা ইত্যাদি সর্ম্পকে  বুঝিয়ে বা পরামর্শ দিতে হবে।

(খ)প্রসব পূর্ব  প্রসবোত্তর ব্যবস্থাপনা :

প্রসবেব পরই মায়ের এবং নব জাতকের যত্ন নিতে হবে। মা যেন শিশুকে বুকের দুধ খাওয়াতে পারে, সে দিকে নজর নিতে হবে। মাকে বুঝিয়ে দিতে হবে কিভাবে শিশু ও নিজের যত্ন নিতে হবে। ৪৫দিন পর  শিশুকে টিকা দেওয়ার কথা অবশ্যই বলে দিতে হবে। মায়ের অতিরিক্ত রক্ত স্রাব হচ্ছে কিনা তা দেখতে হবে। যদি রক্ত স্রাববেশী হয় তবে উপযুক্ত চিকিৎসা দিতে হবে ডাক্তারে নির্দেশ অনুযায়ী।

০৮.

দন্ত রোগের চিকিৎসা সেবা:

বহি বিভাগে আগত রোগীদেরকে দন্ত রোগের চিকিৎসা দেওয়া হয়।

০৯.

স্বাস্থ্য শিক্ষা কার্যক্রম:

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহি বিভাগ, জরুরী বিভাগ ও আন্তঃ বিভাগে রোগীদেরকে শিশু পরিচর্যা, পুষ্টি, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন, ডায়রিয়া, ইপিআই, ম্যালেরিয়া, নিরাপদ মাতৃত্ব, শিশু স্বাস্থ্য, মাতৃ স্বাস্থ্য, খাবার স্যালাইন, পারিবারিক স্বাস্থ্য সচেতনতা, হাত ধোয়া ও আর্সেনিক সম্পর্কে শিক্ষা প্রদান করা হয়।

১০.

এক্স-রে ও ইসিজি সেবা :

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরকারি ইউজার ফি মোতাবেক বহিঃ বিভাগ,জরুরী  বিভাগ ও আন্তঃ বিভাগের ডাক্তারদের ব্যবস্থাপত্র মাধ্যমে রোগীদেরকে এক্স-রে করা হয়। এক্স-রে ফি-বাবদ বড় ফ্লিম- (সাইজ ১২র্র্-১৫র্) = ৭০/- টাকা এবং মাঝারি ফ্লিম - (১০র্র্-১২র্) = ৫৫/- টাকা ও ছোট ফ্লিম (সাইজ ৮র্-১০র্) = ৫৫/- টাকা নেওয়া হয় এবং ইসিজি প্রতি রোগী থেকে ৮০/- টাকা করে নেওয়া

 

 

সেবার ধরণ

         সেবাগুলো

সেবা প্রদান/প্রাপ্তিতে অসুবিধা সমূহ

নাগরিক পর্যায়ে

সরকারি পর্যায়ে

বহিঃবিভাগীয় ও

জরুরী চিকিৎসা সেবা

(১) সকল রোগের / জখমের / জরুরী চিকিৎসা প্রদান

(২) বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা পরামর্শ প্রদান,

(৩) চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট পরীক্ষা নিরিক্ষা সম্পাদন,

(৪) উচ্চতর হাসপাতালে রেফার করা,

(৫) এম্বুলেন্স সহযোগে হাসপাতালে প্রেরণ

(১) সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে যথাযথ ভাবে চিাকৎসা পাওয়াতে হয়রানী হওয়া। ডাক্তার অবস্থান না করা/ চিকিৎসকগণের দেরিতে উপস্থিতি / অনুপস্থিতির কারণে সময় মতো যথাযথ চিকিৎসা না পাওয়া।

(২) সকল পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে না পারা

(৩)এম্বুলেন্সের জালানী খরচ বহন করতে না পারা

(১) সব পর্যায়ের জনবল পদায়ন করতে না পারা

(২) সব বিষয়ের বিশেষজ্ঞ পদায়ন করতে না পারা

(৩) সরকারী অন্যান্য বিভাগের মতো সংগ্রহ ও বিতরণ নীতিমালার কারনে  সময়মতো সংগ্রহ ও রোগীদের সরবরাহ করতে না পারা (স্বাস্থ্য বিভাগের জন্য বাস্তব সম্মত পৃথক নীতি মালা প্রয়োজন)

(৪) নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকা।

অন্তঃ বিভাগীয় চিকিৎসা সেবা

(১) অন্তঃবিভাগে ভর্তি করে সরাসরি চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা প্রদান,

(২) পথ্য প্রদান

(৩) নার্সিং সেবা প্রদান

(৪) চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ

(১) উপজেলায় ডাক্তার অবস্থান না করা/চিকিৎসকগণের দেরীতে/অনুপস্থিতি সময় মতো যথাযথ চিকিৎসা না পাওয়া।

(২) সকল পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে না পারা

 

(১) সব পর্যায়ের জনবল পদায়ন করতে না পারা

(২) সব বিষয়ের বিশেষজ্ঞ পদায়ন করতে না পারা

(৩) সরকারি অন্যান্য বিভাগের মতো সংগ্রহ ও বিতরণ নীতিমালার কারণে  সময়মতো সংগ্রহ ও রোগীদের সরবরাহ করতে না পারা (স্বাস্থ্য বিভাগের জন্য বাস্তব সম্মত পৃথক নীতি মালা প্রয়োজন)

ঔষধ সরবরাহ

অন্তঃ বিভাগীয় ও বহিবিভাগীয় রোগীদের হাসপাতালে এভ্যাইলএবল ঔষধ সরবরাহ ও প্রয়োগ

সকল জরুরী ও প্রয়োজনীয় ওষুধ এভ্যাইলএবল না থাকাতে বাহির থেকে ক্রয় করা ও সময়মতো না পাওয়া

(১) চাহিদা নির্ভর সংগ্রহ বিতরণ নীতিমালা না থাকা

(২) উপর মহল থেকে বাস্তবতা বর্জিত সংগ্রহ ও সরবরাহ পাওয়ার কারণে যথাযথ ওষুধ  সরবরাহ

রোগ প্রতিষেধক টিকা প্রদান কার্যক্রম (সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচী)

০-১১ মাস বয়সী শিশুদেরকে যক্ষা,ডিপথেরিয়া,ধনুষ্টংকর,  লতা কাশ, পোলিও,হেপাটাইটিস বি,হিমোঃ ইনফ্লুয়েনঞ্জা, হাম - এই ৮ রোগ রোগের প্রতিষেধক টিকা প্রয়োগ।

সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে যথাযথ ভাবে সেবা পাওয়াতে হয়রানি হওয়া।

 

(১) ১৯৮৫ সালে গৃহীত প্রতি ৫০০০ জনগোষ্ঠীর জন্য একজন স্বাস্থ্য সহকারী এই নীতিমালা অনুযায়ী লোক নিয়োগ অব্যাহত না থাকাতে সেবার ক্রমশতা বিঘ্নিত হওয়া।

(২) প্রয়োজনীয় জনবল সব সময় পদায়ন/কর্মরত না থাকা ।

সমন্বিত শিশু রোগ চিকিৎসা সেবা

সমন্বয়ের মাধ্যমে ০-৫ বছরের শিশুদের সকল সাধারন রোগ গুলো- জ্বর, ডায়রিয়া, এআরআই, কান পাকা, শিশু অপুষ্টি চিকিৎসা করা এবং মায়েদেরকে সঠিকভাবে বুকের দুধ খাওয়ানোর প্রশিক্ষণ দেয়া

সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে যথাযথ ভাবে সেবা পাওয়াতে হয়রানি হওয়া।

 

(১) চাহিদা অনুযায়ী সঠিক সংখ্যক প্যারামেডিকস ও নার্স না থাকা।

(২) সময়মতো প্রয়োজনীয় ওষুধ ও লজিষ্টিক সরবরাহ না পাওয়ার কারণে সেবা বিঘ্নিত হওয়া।

প্রজনন স্বাস্থ্য ও গর্ভাবস্থা পরিচর্যা প্রসব ও প্রসূতী সেবা

 

 

(১) প্রজনন সক্ষম  সকল মহিলাদেরকে ধনুষ্ঠংকারের টিকাদান ও প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ক আলোচনা।

(২) রক্ত শূন্যতা রোধে প্রজনন সক্ষম  সকল মহিলাদেরকে আয়রন+ফলিক এসিড বড়ি সরবরাহ।

(৩) সকল গর্ভবতীদের নিয়মিত চেকআপ / প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদান ও রেফারেল,

(৪) প্রসব সেবা (প্রয়োজনে সিজার এবং জটিল প্রসবের ব্যবস্থা করা), প্রসবোত্তর সেবা

(৫) পরিকল্পিত পরিবার গঠনে পরামর্শ দিয়ে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করা।

(১) সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারনে যথাযথ ভাবে সেবা পাওয়াতে হয়রানী হওযা।

 

(২) জরুরী এবং জটিল প্রসবের জন্য সার্বক্ষনিক ব্যবস্থা না থাকাতে সেবা প্রাপ্তিতে অসুবিধা।

 

(১) রক্ষণশীল গ্রামীণ জনগণের হাসপাতালে গর্ভবতী সেবা গ্রহণে অনীহা

(২) সব সময় মহিলা সেবাদান কর্মী না থাকার কারণে পুরুষ সেবাদানকারীর নিকট সেবা গ্রহণে গ্রামীণ মহিলাদের অনিহা।

(৩) সার্বক্ষণিক ও জরুরী  প্রসব সেবার জন্য প্রয়োজনীয় লজিষ্ঠিক সরবরাহ ও জনবল পদায়ন করতে না পারা।

(৪) মহিলা চিকিৎসক এবং সেবাদান কর্মীদের গ্রামে অবস্থান করার অনীহা

সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রন কার্যক্রম

(১) ম্যালেরিয়া ও মশা বাহিত অন্যান্য রোগ নিয়ন্ত্রনের জন্য জনগনকে কিটনাশকে চুবানো মশারী সরবরাহ করা,

(২) টিবি রোগী দের সনাক্ত করে কম্যুনিটি পয্যায়ে সরাসরি তত্ত্বাবধানে ওষুধ খাওয়ানো, এইডস রোগ বিস্তার রোধে মাধক সেবী, সেক্স ওয়ার্কার ও ভালনারেবল জনগোষ্ঠিকে প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহ করা

(৩) ফাইলেরিয়াসিস রোগ নিয়ন্ত্রনের লক্ষ্যে শিশুদের কে বছরে ২ বার ক্রিমি নাশক খাওয়ানো

(১) এনজিও নির্ভর কর্মসুচীতে ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর অগ্রাধিকার না পাওয়া।

(২) যথা সময়ে সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে যথাযথ ভাবে সেবা পাওয়াতে হয়রানি হওয়া।

 

সঠিক তথ্য নির্ভর পরিকল্পনার অভাবে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে না পারা।

স্বাস্থ্যকর আচরনে অভ্যস্থ   করা এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা প্রদান

উঠান বৈঠক, হাসপাতাল, কম্যুনিটি ক্লিনিকে আগত রোগী এবং রোগীর অভিভাবক অন্যদেরকে স্বাস্থ্যকর আচরণ বিধি মেনে চলার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করার জন্য প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য বার্তা প্রদান।

শিক্ষা ও সচেতনতার অভাব এবং দারিদ্রের  কারণে স্বাস্থ্য সম্মত আচরণ বিধি মেনে চলতে না পারা।

যুগোপযোগী, প্রয়োজনীয় ও কার্যকর স্বাস্থ্য শিক্ষা উপকরণ (অডিও ভিজ্যুয়েল) এর সরবরাহ না থাকার কারণে স্বাস্থ্য শিক্ষা ব্যাহত হওয়া।

অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ করা

আর্সেনিকোসিসে আক্রান্তদের খুজে আর্সেনিকযুক্ত পানির উৎস খুজে বের করা এবং সুপেয় আর্সেনিকমুক্ত  পানির ববস্থা করা।

সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে যথাযথ ভাবে সেবা পাওয়াতে হয়রানি হওয়া।

 

কর্মসূচী গুলো ধারাবাহিকতা না থাকার কারণে

স্বাস্থ্য তথ্য সংগ্রহ এবং সংকলন

(১) গ্রাম ও প্রাতিষ্ঠানিক কার্যালয়ের সকল অসুস্থতার তথ্য সিস্টেমেটিকভাবে সংগ্রহ করাম সংকলন ও রেকর্ড করা

(২) স্বাস্থ্য তথ্য তৈরী করে পলিসি মেকারদেরকে পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য প্রেরণ করা

 

(১) প্রয়োজনীয় ও কার্যকর প্রযুক্তি এবং জনবল না থাকা

(২) উপজেলা পর্যায়ে এপিডেমিও লজিষ্ট না থাকাতে স্থানীয়ভাবে  সঠিক সময়ে তথ্যনির্ভর পরিকল্পনা গ্রহণে ব্যর্থতা

দূর্যোগ উত্তর উদ্বুত স্বাস্থ্য সমস্যায়  সাস্থ্য সেবা প্রদান

দূর্যোগ উত্তর উদ্বুত স্বাস্থ্য সমস্যা যেমন আঘাত পাওয়া, পানিতে ডুবে যাওয়া, সাপে কাটা, ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যার চিকিৎসা দেয়া।

(১) পরিকল্পনায় আমলাতান্ত্রিকতা এবং গ্রাম পর্যায়ে চিকিৎসকদের অনুপস্থিত থাকাতে দূর্যোগোত্তর পরিস্থিতিতে প্রত্যন্ত অঞ্চলে তাৎক্ষণিক সেবা না পাওয়া।

(২) দূর্যোগোত্তর পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য সমস্যা বিষয়ে জনগণের সঠিক তথ্য না থাকা।

(১) দূর্যোগোত্তর পরিস্থিতিতে ব্যবহার্য গাড়ী বা পরিবহণ ব্যবস্থা না থাকাতে সেবা ব্যাহত হওয়া।

(২) দুর্যোগোত্তর স্বাস্থ্য সমস্যা সমাধান পরিকল্পনায় আমলাতান্ত্রিক এবং রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ।

 

মেডিকো লিগ্যাল সেবা

(১) ধর্ষিতা মহিলার তাৎক্ষণিক চিকিৎসা প্রদান ও

(২) বিচার কার্যের প্রয়োজনে ধর্ষনের সদন পত্র প্রদান এবং জখমীদের চিকিৎসা  ও জখমী প্রদান সনদপত্র  প্রদান

(১) সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে যথাযথ ভাবে সেবা পাওয়াতে হয়রানি হওয়া।

(২) সনদ প্রদানকারী চিকিৎসকদের  দুর্নীতি করার সুযোগ থাকাতে জনগণের হয়রানি হওয়া

ফরেনসিক বা মেডিকো লিগ্যাল বিষয়ে বিশেষজ্ঞ পদায়ন না থাকাতে সঠিক সেবা দিতে না পারা।

ছবি নাম মোবাইল
ডাঃ শেখ ফজলে রাব্বি ০১৫৫৪৩২৫৬৮২

ছবি নাম মোবাইল
ডাঃ শেখ ফজলে রাব্বি ০১৫৫৪৩২৫৬৮২

ছবি নাম মোবাইল
মোহাম্মদ শামসুজ্জামান

 

১। সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচী ।

২। মাতৃস্বাস্থ্য ভাউচার স্কীম ।

৩। ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রন কর্মসূচী ।

৪। TB & Laprosy নিয়ন্ত্রন কর্মসূচী।

৫। Arsenic  রোগ সনাক্তকরন ও চিকিৎসা ।

৬। কৃমি নিয়ন্ত্রন কর্মসূচী।

৭। জাতীয় অন্ধত্ব নিবারন কর্মসূচী।

৮। মাতৃদুদ্ধ সেবন উদ্বুদ্ধকরন কর্মসূচী।

৯। ARI কর্মসূচী।

১০।AFP সনাক্তকরন কর্মসূচী।

১১।প্রতিবন্দি  সনাক্তকরন কর্মসূচী।

 

হাটহাজারী পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের আলীপুর মৌজায় অবস্থিত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। প্রধান কর্মকর্তার পদবী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা এবং তাঁর কার্যালয় উক্ত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নির্ধারিত। চট্টগ্রাম শহরে অক্সিজেন বাস ষ্ট্যান্ড থেকে বাস যোগে ফটিকছড়ি রোড় দিয়ে হাসপাতাল গেইট থেকে বামে সামান্য পশ্চিম দিকে এবং চট্টগ্রাম ষোলশহর রেল ষ্টেশন থেকে রেল যোগে সরাসরি হাটহাজারী রেল ষ্টেশন এর পূর্ব পার্শ্বে হাটহাজারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।


Share with :